মৃত্যু স্বাভাবিক ছিলো না, আমার ভিডিও বার্তার স্বীকারোক্তি জোরপূর্বক নেয়া হয়েছে: আল্লামা শফীর বড় ছেলে

0

হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুকে ‘অস্বাভাবিক’ বলে মনে করছে তাঁর পরিবার। আহমদ শফীর মৃত্যুর ‘রহস্য’ বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে উদঘাটন করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তার ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন আহমদ শফী আল-মাদানি।

মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে শফীপুত্রের তুলে ধরা চারটি দাবি হলো— বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে আহমদ শফীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন করে এর সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শান্তির ব্যবস্থা করতে হবে; পরিবারের পক্ষ থেকে দায়ের করা মামলা তদন্ত করে অবিলম্বে প্রকৃত দোষীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করতে হবে।

আহমদ শফীর পরিবারের সদস্য ও তার অনুসারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে, যারা মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে তাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে; এবং আহমদ শফীর রেখে যাওয়া সব দ্বীনি ও সামাজিক অঙ্গনগুলো থেকে বিরোধীদের অপসারণ করতে হবে।

ভিডিও বার্তার বিষয়ে হেফাজতে ইসলামের প্রয়াত আমির শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন আহমদ বলেছেন, ‘জুনায়েদ বাবুনগরী বারবার বলছেন, আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যু স্বাভাবিক হয়েছে।

আর এর স্বপক্ষে তিনি আমার ভিডিও বার্তার মাধ্যমে দেয়া স্বীকারোক্তিকে বড় দলিল হিসেবে পেশ করছেন। অথচ আমার কাছ থেকে জোরপূর্বক এই স্বীকারোক্তি নেয়া হয়েছে ২২ সেপ্টেম্বর। আর তা প্রচার করা হয়েছে এক সপ্তাহ পর। এতেই প্রমাণিত হয়, পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের বাঁচানোর হীন উদ্দেশ্যে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার জন্য এই ষড়যন্ত্র করা হয়েছে।’

হেফাজতে ইসলামের এই নেতা আরও বলেন, ‘অথচ আমি পরবর্তীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও বার্তায় বলেছি যে, আমাকে জিম্মি করে জোরপূর্বক ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে এই পরিত্যক্ত স্বীকারোক্তি নেয়া হয়েছিল। আমি পরিষ্কার ভাষায় বলেছি, আমার বাবার মৃত্যু স্বাভাবিক হয়নি।